সচিব কমিটিতে আটকে আছে নন-ক্যাডারদের নিয়োগবিধি

Byserajob

Dec 22, 2022 , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,
সচিব কমিটিতে আটকে আছে নন-ক্যাডারদের নিয়োগবিধি

সচিব কমিটিতে আটকে আছে নন-ক্যাডারদের নিয়োগবিধি

 

নন-ক্যাডার নিয়োগের সংশোধিত বিধি এখনো পাস হয়নি। পাস করার জন্য তা সচিব কমিটিতে পাঠিয়েছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। ওই কমিটিতে এটি পাস হলেই ৪০তম বিসিএসসহ অন্য বিসিএসের নন-ক্যাডার নিয়োগপ্রক্রিয়া চালু করা যাবে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্র প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এদিকে সচিব কমিটিতে ওই বিধি আটকে থাকায় নিয়োগ না পাওয়ার হতাশা প্রকাশ করেছেন নন-ক্যাডার চাকরিপ্রার্থীরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র প্রথম আলোকে জানায়, দেড় মাস আগে পিএসসি নন-ক্যাডার নিয়োগের বিধি সংশোধন করার জন্য একটি বিধিমালা সচিব কমিটিতে পাঠায়। সেটি পাঠিয়ে পিএসসি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। মন্ত্রণালয় এখন সেই বিধি পাসের জন্য সচিব কমিটিতে পাঠিয়েছে। কিন্তু মন্ত্রিপরিষদ সচিবের পরিবর্তন হওয়ার কারণে এখন সেটি ঝুলে আছে। ওই সূত্র আরও জানায়, বিধিটি পাসের জন্য যখন পিএসসি সচিব কমিটিতে পাঠায়, তখন মন্ত্রিপরিষদ সচিব ছিলেন খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তাঁর শেষ সময়ে এটি আর সচিব কমিটিতে ওঠেনি। এর মধ্যে এই পদে পরিবর্তন এসেছে। এই বিভাগের নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব কবির বিন আনোয়ার দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। ১৮ ডিসেম্বর তিনি নতুন দপ্তরে কার্যক্রম শুরু করেছেন। এখন পিএসসি আবার সেটি পাস করার জন্য নতুন সচিবের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে। এটি পাস হলেই দ্রুত সময়ের মধ্যে ৪০তম বিসিএসের নন-ক্যাডার তালিকা প্রকাশিত হবে বলেও জানায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্র।

এদিকে সরকারের পক্ষ থেকে নন-ক্যাডার নিয়োগের সংশোধিত বিধি পাস না হওয়া পর্যন্ত এই নিয়োগ দিতে পারছে না সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় বলছে, নতুন বিধি সংশোধন হওয়ার পর সরকারের পক্ষ থেকে তা চূড়ান্ত করা হলে পরবর্তী নন-ক্যাডার নিয়োগ দিতে পারবে পিএসসি। ওই বিধি পাস হওয়ার পরই পিএসসি দ্রুত সময়ের মধ্যে ৪০তম বিসিএসের অপেক্ষমাণ নন-ক্যাডারদের বিভিন্ন পদে সুপারিশের তালিকাও প্রকাশ করতে পারবে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বিসিএস থেকে নন-ক্যাডার নিয়োগের ক্ষেত্রে ২০১০ সালের বিধি ২০১৪ সালে সংশোধন করা হয়েছে। বিধিতে বলা আছে, বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে ক্যাডারের পাশাপাশি নন-ক্যাডার শূন্য পদের বিবরণ ও সংখ্যা উল্লেখ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু ২৮তম বিসিএস থেকে ৪৪তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে নন-ক্যাডার শূন্য পদের বিবরণ ও সংখ্যা উল্লেখ করা সম্ভব হয়নি। এ জন্য সরকার বিধি সংশোধন করে ৩৪তম বিসিএস পর্যন্ত নন-ক্যাডার নিয়োগের বৈধতা দিয়েছিল। এখন একইভাবে ৩৫ থেকে ৪৪তম বিসিএসের নন-ক্যাডার নিয়োগের বৈধতা দেওয়ার চিন্তা করছে সরকার। এটি করা হলে আবার বিধি সংশোধন করতে হবে। তাহলে ৪০তম বিসিএসের নন-ক্যাডার নিয়োগের তালিকা প্রকাশ করা যাবে।

নন-ক্যাডার নিয়োগে পিএসসির অবস্থান জানতে চাইলে একজন উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা সরকারের দিকে তাকিয়ে আছি। সরকারি বিদ্যমান বিধি সংশোধন করে ৪৪তম বিসিএস পর্যন্ত ওয়েভার দিলেই আমরা ৪০তম বিসিএসের নন-ক্যাডারের তালিকা প্রকাশ করতে পারব। তালিকা প্রস্তুত আছে। বিধি পাস হলেই তা প্রকাশ করা যাবে।’

পিএসসি সূত্র জানায়, গত কয়েকটি বিসিএসে মেধার ভিত্তিতে ক্যাডার পদে নিয়োগের পর উত্তীর্ণ বাকি প্রার্থীদের নন-ক্যাডার হিসেবে অপেক্ষমাণ তালিকায় রাখা হচ্ছিল।

এরই মধ্যে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরকে চিঠি দিয়ে তাদের প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির শূন্য পদের সংখ্যা কত, তা পিএসসিতে পাঠানোর অনুরোধ করা হতো। সেখান থেকে পাঠানো পদের চাহিদা অনুযায়ী মেধার ভিত্তিতে নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের সুপারিশ করা হতো। নতুন আরেকটি বিসিএসের ফল প্রকাশের আগপর্যন্ত শূন্য পদের চাহিদা এলে পিএসসি অপেক্ষমাণ প্রার্থীদের মধ্য থেকে যোগ্যদের নিয়োগের সুপারিশ করত।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এখন থেকে নতুন বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে ক্যাডার পদের পাশাপাশি নন-ক্যাডার পদের সংখ্যাও উল্লেখ থাকবে। তবে চলমান ৪০, ৪১, ৪৩ ও ৪৪তম বিসিএসের ক্ষেত্রে কোনো বিসিএসের সময় কোন শূন্য পদের চাহিদা এসেছে, তা পর্যালোচনা করে মেধার ভিত্তিতে নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের সুপারিশ করা হবে।
গত ২৩ আগস্ট পিএসসি থেকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো এ-সংক্রান্ত চিঠিতে বলা হয়েছে, বিসিএসে নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের আগে যত শূন্য পদই আসুক, তা একটি বিসিএসে নিয়োগ দিয়ে শেষ করা যাবে না। কোন শূন্য পদ কোন বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সময় এসেছে, তা বিবেচনায় আনতে হবে।

৪০তম বিসিএসের নন-ক্যাডার নিয়োগ আগের নিয়মেই দেওয়ার দাবিতে টানা আন্দোলন করে আসছিলেন চাকরিপ্রার্থীরা। তাঁরা ছয় দফা দাবি নিয়ে পিএসসির সামনে মানববন্ধন ও মিছিল করেছিলেন। আন্দোলনকারীদের কয়েকজন প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা চান আগের নিয়মেই নন-ক্যাডার নিয়োগ হোক। না হলে তাঁরা অনেকেই চাকরি পাবেন না। চার বছরে বিভিন্ন পরীক্ষা দিয়ে বিসিএস পাস করে চাকরি না পাওয়া অনেক কষ্টের বলেও জানান অনেক চাকরিপ্রার্থী।

এদিকে সাত মাসেও নন-ক্যাডার তালিকা প্রকাশ না করায় হতাশা প্রকাশ করেছে ৪০তম বিসিএসের নন-ক্যাডারের অপেক্ষমাণ তালিকায় থাকা একাধিক প্রার্থী। তাঁদের কয়েকজন প্রথম আলোকে জানান, এত দিন ধরে অপেক্ষায় আছি নন-ক্যাডারের তালিকা প্রকাশিত হওয়ার জন্য, কিন্তু পিএসসির পক্ষ থেকে তা করা হয়নি। সুপারিশ পাওয়ার পরও নিয়োগ পেতে অনেক সময় লাগে, সেটি তো পিএসসি নিশ্চয়ই জানে।

আমরা এমনিতেই বেকার। এভাবে অপেক্ষা করতে করতে আমাদের হতাশা আরও বেড়ে গেছে। এখনো আমরা অনিশ্চয়তার মধ্যে আছি। সরকার ও পিএসসিকে দ্রুত নন-ক্যাডারের তালিকা প্রকাশের অনুরোধ জানান প্রার্থীরা। সেই সঙ্গে নতুন নিয়মে নন-ক্যাডার নিয়োগের সময় যেন তাঁদের প্রতি অবিচার না করা হয়, সেই অনুরোধও জানিয়েছেন অপেক্ষমাণ প্রার্থীরা।

By serajob

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *