নন-আইটি ব্যাকগ্রাউন্ডের ডিগ্রিধারীরা আইটি বিপ্লবের সুবিধা কীভাবে পেতে পারেন

নন-আইটি ব্যাকগ্রাউন্ডের ডিগ্রিধারীরা আইটি বিপ্লবের সুবিধা কীভাবে পেতে পারেন

 

ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক-বাংলাদেশ ইসলামিক সলিডারিটি এডুকেশন ওয়াক্‌ফ (আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ ) বাংলাদেশ সরকার এবং ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, জেদ্দা, সৌদি আরবের যৌথ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত একটি প্রতিষ্ঠান। তথ্যপ্রযুক্তি এবং কারিগরি শিক্ষা খাতে বাংলাদেশের যুবসমাজের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ নিজস্ব অর্থায়নে কর্মমুখী শিক্ষা ও বিভিন্ন প্রকল্প প্রণয়ন, অর্থায়ন এবং বাস্তবায়ন করে থাকে।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) কর্তৃক প্রকাশিত ২০২১ সালের ডেটা অনুসারে, বাংলাদেশে ৪ হাজার ৫০০ বেশি software এবং IT-Enabled কোম্পানি নিবন্ধিত রয়েছে, যেখানে ৩ লাখের বেশি আইসিটি পেশাদার কর্মরত আছেন। বাংলাদেশে টেলিকম ব্যতীত আইসিটি বাজারের আকার আনুমানিক ১ দশমিক ৫৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার (প্রায়)। দেশের দ্রুত বিকাশমান আইটি সেক্টর অত্যন্ত উচ্চহারে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছে। কিন্তু এই দ্রুত বিকাশমান আইটি সেক্টর থেকে নন-আইটি ব্যাকগ্রাউন্ডযুক্ত স্নাতকধারীরা কীভাবে সুবিধা পেতে পারেন?

এই প্রেক্ষাপটে, আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ আইটি স্কলারশিপ প্রোগ্রাম নন-আইটি ব্যাকগ্রাউন্ডের স্নাতকধারীদের জন্য সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে আইটি প্রশিক্ষণ কোর্স পরিচালনা করে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। উল্লেখ্য, আইটি সেক্টরে নিয়োগকর্তারা শুধু বিশেষ কিছু টেকনোলজির দক্ষ প্রার্থীদের খোঁজেন।

অন্যদিকে, প্রাথমিক পর্যায়ের চাকরির আবেদনকারীদের জন্য চ্যালেঞ্জ হলো নিয়োগকর্তাদের দ্বারা নির্ধারিত বিভিন্ন ধরনের দক্ষতার সংমিশ্রণ অনুযায়ী নিজেদের তৈরি করা। আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ আইটি স্কলারশিপ প্রোগ্রাম তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পের বিভিন্ন সেক্টরের চাকরির বাজার সার্ভে করে তদনুযায়ী কোর্সগুলো ডিজাইন করে। প্রশিক্ষণ প্রোগ্রামের ট্র্যাকগুলোতে চাকরিপ্রাপ্তির হার ৯০ শতাংশের বেশি, যা এই প্রোগ্রামের মান মূল্যায়ন এবং সাফল্যের চূড়ান্ত সূচক।

এই স্কলারশিপ প্রোগ্রামের কোর্সগুলো এমনভাবে ডিজাইন করা যে যেকোনো ব্যাকগ্রাউন্ডের ডিগ্রিধারীরা আইটি সেক্টরে তাঁদের ক্যারিয়ার পরিবর্তন করতে পারেন। আইটি স্কলারশিপ প্রোগ্রামটি ২০০৩ সাল থেকে কার্যক্রম শুরু করে এবং এখন পর্যন্ত ১৬ হাজার ৩২ জন আইটি প্রফেশনাল তৈরি করেছে, যাঁরা দেশে–বিদেশের ২ হাজার ৯৩৭ জন প্রতিষ্ঠানে নিযুক্ত রয়েছেন। এই প্রোগ্রাম স্নাতক/সমমান ডিগ্রিধারী এবং পলিটেকনিক থেকে ৪ বছরের ডিপ্লোমাধারী প্রার্থীদের বৃত্তি প্রদান করে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা স্নাতক পর্যায়ে তাঁদের পছন্দমতো বিষয় বেছে নিতে পারেন না। এই শিক্ষার্থীরা কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের ক্ষেত্রে একটি একাডেমিক বিষয় বেছে নিতে বাধ্য হন, যা অনেক ক্ষেত্রে তাঁদের আগ্রহ বা কর্মজীবনের লক্ষ্য পূরণ করে না।

ক্রমবর্ধমান আইটি শিল্পে ক্যারিয়ার পরিবর্তনে আগ্রহী স্নাতক/ সমমানের ডিগ্রিধারীদের জন্য আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ ডিজাইন করা কোর্সগুলোকে নিম্নে উল্লিখিত তিনটি ট্র্যাকে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে:

 

  • ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড প্রোগ্রামিং
  • নেটওয়ার্কিং অ্যান্ড সিস্টেম অ্যাডমিনিস্ট্রেশন
  • আইটি এনেবল্ড সার্ভিসেস

 

ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড প্রোগ্রামিং ট্র্যাক

 

১. ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট উইথ পিএচপি অ্যান্ড ফ্রেমওয়ার্কস

এই কোর্সে অংশগ্রহণকারীরা পিএচপি প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করে ডেটাবেজ ড্রিভেন ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরিতে দক্ষতা অর্জন করে। তারা MySQL ডেটাবেজ এবং শক্তিশালী ফ্রেমওয়ার্ক যেমন Laravel, Vue.js, CodeIgniter এবং অন্যান্য ওয়েব টেকনোলজি সমন্বিত ওপেন সোর্স প্ল্যাটফর্ম (WordPress, JavaScript, React ইত্যাদি) ব্যবহার করে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপ করার জন্যও প্রশিক্ষিত।

২. এন্টারপ্রাইস সিস্টেমস এনালাইসিস অ্যান্ড ডিসাইন – সি#.নেট

ASP.NET ওয়েব ফর্ম, MVC 5 এবং .NET Core ব্যবহার করে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন, ওয়েব সার্ভিসেস এবং API ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্টের জন্য এই কোর্সে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। প্রশিক্ষণার্থীরা MVC, Razor, BLAZOR এবং WCF আর্কিটেকচারগুলো ব্যবহার করতে শিখে। এই কোর্সে প্রশিক্ষণার্থীদের C#.NET Language–এর সঙ্গে অন্যান্য প্রযুক্তির শেখানোর মাধ্যমে ক্লাউড কম্পিউটিং (Azure)–এর অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করতে শেখানো হয়। SignalR ব্যবহার করে রিয়েল টাইম যোগাযোগ শেখানো হয় এবং MAUI ব্যবহার করে ক্রস-প্ল্যাটফর্ম, মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট শেখানো হয়। কোর্সটিতে সার্ভার-সাইড স্ক্রিপ্টিং Node.js এবং ক্লায়েন্ট-সাইড ইঞ্জিনিয়ারিং ফ্রেমওয়ার্ক, Angular–এর ব্যবহার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

৩. এন্টারপ্রাইস সিস্টেমস এনালাইসিস অ্যান্ড ডিসাইন – জেইই

এই কোর্সের প্রশিক্ষণার্থীরা জাভা এন্টারপ্রাইজ এডিশন (জেইই) প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে অ্যাপ্লিকেশন তৈরিতে দক্ষ। Java EE, Android, Flutter, Spring Boot, Angular, JavaScript, Swing, Oracle Database–সহ বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করে ওয়েব, ডেস্কটপ এবং মোবাইল প্ল্যাটফর্মের জন্য অ্যাপ্লিকেশন ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্টের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

৪. ডেটাবেজ ডিসাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট

ওরাকল ডেটাবেজ প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে অ্যাপ্লিকেশন তৈরিতে দক্ষ এই কোর্সের প্রশিক্ষণার্থীরা। ওরাকল সার্টিফাইড প্রফেশনাল (ওসিপি) সার্টিফিকেশন ট্র্যাকের ওপর ভিত্তি করে, এই কোর্সে ওরাকল ডেটাবেজ 12c এবং ফিউশন মিডলওয়্যারসহ এর সম্পর্কিত ডেভেলপমেন্ট ও রিপোর্টিং টুল শেখানো হয়। তা ছাড়া ফ্রন্ট-অ্যান্ড টুল হিসেবে ওরাকল অ্যাপ্লিকেশন এক্সপ্রেস (এপেক্স) এর প্রশিক্ষণ এই কোর্সে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

 

নেটওয়ার্কিং অ্যান্ড সিস্টেম অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ট্র্যাক

  • নেটওয়ার্কিং টেকনোলজিস

কম্পিউটার নেটওয়ার্ক ডিজাইন, পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণ করার জন্য উইন্ডোজ সার্ভার 2016 এবং রেডহ্যাট লিনাক্স এন্টারপ্রাইস এডিশনের যাবতীয় বিষয় প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। তারা উইন্ডোজ 10–এর সঙ্গে DHCP, DNS, Active Directory ইত্যাদির ব্যবহার, Infrastructure, Linux Shell–এর ব্যবহার এবং Microsoft Exchange Server 2013/2016 ডেপ্লয় করতে শেখে। এই কোর্সের প্রশিক্ষণার্থীরা হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার সিস্টেম এবং নেটওয়ার্ক সমস্যা সমাধান এবং রক্ষণাবেক্ষণে পারদর্শী। এ ছাড়া MikroTik এবং CISCO ডিভাইস ব্যবহার করে নেটওয়ার্ক এর অন্যন্য কাজও এই কোর্সে শেখানো হয়।

 

আইটি—এনাবল্ড সার্ভিসেস ট্র্যাক

 

  • গ্রাফিকস, অ্যানিমেশন অ্যান্ড ভিডিও এডিটিং

মূলত গ্রাফিকস ডিজাইন, 2D/3D মডেলিং এবং অ্যানিমেশন এবং অডিও-ভিডিও এডিটিংসহ মাল্টিমিডিয়া প্রযুক্তির সঙ্গে কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ এই কোর্সটিতে বিষদভাবে প্রদান করা হয়। প্রশিক্ষণার্থীরা Illustrator, Photoshop, Animate, 3DS Max, Adobe Premiere, After Effects ইত্যাদি ব্যবহার করে গ্রাফিকস, অ্যানিমেশন এবং ভিডিও তৈরিতে দক্ষ হয়ে ওঠে।

 

কোর্স শেষে প্রশিক্ষণার্থীরা যে ধরনের পদে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়

আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ আইটি স্কলারশিপ প্রোগ্রাম দক্ষ এবং যোগ্য জনবল তৈরি করে আইটি চাকরির বাজারে সুনাম অর্জন করেছে। স্কলারশিপ প্রোগ্রাম থেকে Professional Diploma অর্জন করে আইটি শিল্পের বিভিন্ন পদে কর্মসংস্থান করা হয়। প্রতিটি ট্র্যাকের প্রাথমিক পর্যায়ের পদের একটি সংক্ষিপ্ত নমুনা নিচে দেখানো হয়েছে:

ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড প্রোগ্রামিং

 

  • প্রোগ্রামার
  • ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপার
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার (জাভা)
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার (.নেট)
  • সফটওয়্যার অ্যান্ড অ্যাপ ডেভেলপার
  • প্রোগ্রামার অ্যান্ড ডেটাবেজ ইঞ্জিনিয়ার
  • ওরাকল ডেভেলপার
  • ফুল স্ট্যাক সফটওয়্যার ডেভেলপার
  • সহকারী ডেটাবেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেটর (DBA)
  • অ্যাপস ডেভেলপার

নেটওয়ার্কিং অ্যান্ড সিস্টেম অ্যাডমিনিস্ট্রেশন

  • সহকারী সিস্টেম অ্যাডমিনিস্ট্রেটর
  • নেটওয়ার্ক সাপোর্ট ইঞ্জিনিয়ার
  • সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ার
  • নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ার
  • সহকারী NOC ইঞ্জিনিয়ার

আইটি – এনাবল্ড সার্ভিসেস

  • গ্রাফিকস ডিজাইনার
  • 3D মডেলার
  • 2D অ্যানিমেটর
  • মোশন গ্রাফিকস ডিজাইনার
  • ভিডিও এডিটর
  • ক্রিয়েটিভ ভিজুয়ালাইজার
  • 3D ভিজুয়ালাইজার
  • 3D আর্টিস্ট

আবেদনের যোগ্যতা: স্নাতক/ফাজিল পাস বা মাস্টার্স /কামিলে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা স্কলারশিপের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এ ছাড়া ৪ বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং (শুধু কম্পিউটার/ টেলিকমিউনিকেশন/ ইলেকট্রনিকস/ সিভিল/ আর্কিটেকচার/ সার্ভে/ কনস্ট্রাকশন) পাস প্রার্থীরাও আবেদন করতে পারবে। অনলাইনে আবেদন করার ঠিকানা: apply.isdbbisew.info

আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ পরিচালিত অন্যান্য প্রকল্পসমূহ

 

ভোকেশনাল ট্রেনিং প্রোগ্রাম

বাংলাদেশে কর্মমুখী কারিগরি শিক্ষা প্রসারে ২০১২ সাল থেকে ভোকেশনাল ট্রেনিং প্রোগ্রাম পরিচালনা করে আসছে। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে মূলত পারিবরিক আর্থিক অসচ্ছ্বলতার কারণে হাইস্কুল বা এসএসসি পর পড়াশোনা করতে না পারা ছাত্রদের বিভিন্ন ভোকেশনাল ট্রেড এ প্রশিক্ষণ দওয়া হয়। বর্তমানে একজন শিক্ষার্থী ইলেকট্রিক্যাল ওয়াকর্স, রেফ্রিজারেশন অ্যান্ড এয়ার কন্ডিশনিং, ওয়েল্ডিং অ্যান্ড ফেব্রিকেশন, মেশিনিস্ট ও ইলেকট্রনিকস—এই ৫ ট্রেডের যেকোনো একটিতে ৬ মাসের হাতে-কলমে ফ্রি প্রশিক্ষণ (থাকা-খাওয়াসহ) নিতে পারবে। এখান থেকে যাঁরা সফলভাবে প্রশিক্ষণ শেষ করেছেন, তাঁদের প্রায় শতভাগ বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে যুক্ত আছেন। এই প্রকল্পের আওতায় এ পর্যন্ত ২ হাজার ৩২৩ জন সফলভাবে প্রশিক্ষণ শেষ করেছেন, যাঁদের মধ্যে প্রায় ৯৭ শতাংশ কর্মরত আছেন।

মাদরাসা প্রোগ্রাম

আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় ২০০৬ সালে ৬টি মাদরাসা স্থাপন করে। এই মাদরাসাসমূহে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে সর্বপ্রথম ২০০৮ সালে দাখিল ভোকেশনাল কোর্স শুরু করে।

মাদরাসা প্রোগ্রামের আওতায় এ পর্যন্ত প্রায় ৩২ হাজার ২৫০ জন শিক্ষার্থী বিভিন্ন শ্রেণিতে পড়াশোনা করে সুফল ভোগ করেছেন। তন্মধ্যে, ১ হাজার ৮৭৭ জন দাখিল ভোকেশনাল পরীক্ষায় পাস করেছেন। উল্লেখ্য, আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ দাখিল ভোকেশনাল এ অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার সব খরচ বহন করে।

৪ বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং প্রোগ্রাম

মাদরাসা প্রোগ্রামের অধীন দাখিল ভোকেশনাল পাসকৃত শিক্ষার্থীদের উচ্চতর কারিগরি শিক্ষা নিশ্চিতকল্পে আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ এর অর্থায়নে সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে বিভিন্ন বিষয়ে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স করে ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার পথ খুলে দিয়েছে। প্রকল্পের অধীন বর্তমানে ২৩১ শিক্ষার্থী বাংলাদেশের ৪১টি সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট অধ্যয়নরত এবং ৫৬ জন সফলভাবে ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পূর্ণ করে বর্তমানে কর্মরত আছেন।

আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ কর্তৃক পরিচালিত বিভিন্ন প্রোগ্রামের তথ্য জানতে এবং আবেদন করতে প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

আইএসডিবি-বিআইএসইডব্লিউ, আইডিবি ভবন (৪র্থ তলা)

শেরেবাংলা নগর, ঢাকা-১২০৭

ফোন: +৮৮ ০২ ৯১৮৩০০৬

Email: info@isdb-bisew.org

By serajob

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *